Sunday , 8 December 2019

ঈদের ছুটি কাটিয়ে ঢাকায় ফিরছে মানুষ

ঈদের ছুটি শেষে রাজধানী ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে কর্মজীবী মানুষ। গত কয়েকদিনের তুলনায় আজ শুক্রবার ঢাকামুখি মানুষের চাপ বেশি। তবে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অনেকটায় ফাঁকা। অন্যদিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বেশি। ফলে ধীর গতিতে চলছে যানবাহন। অন্যদিনের তুলনায় ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়ও কম। ট্রেনগুলো দুই থেকে তিন ঘণ্টা বিলম্বে গন্তব্যে পৌছেছে।

এবার ঈদুল আজহা উপলক্ষে ১১, ১২ ও ১৩ আগস্ট ছিল সরকারি ছুটি। মাঝে ১৪ আগস্ট বিভিন্ন অফিস আদালত খোলা ছিল। কিন্তু এদিন অফিস আদালতে ছিল ছুটির আমেজ। পরদিন ১৫ আগস্ট ছিল বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস। আগামী রবিবার থেকে সরকারি অফিস আদালত খুলছে। আর শনিবার থেকে বেসরকারি অফিস খুলবে। ফলে আজ ১৬ আগস্ট ঢাকামুখি মানুষের ভিড় বেশি।

শুক্রবার সকাল থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন বাস টার্মিনাল, সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল ও কমলাপুর রেলস্টেশনে মানুষের প্রচণ্ড ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। দেশের উত্তর ও দক্ষিণ অঞ্চল থেকে রাজধানীতে প্রবেশের মুখ গাবতলী বাস টার্মিনালে দূরপাল্লার বাস থেকে নিজেদের গন্তব্যে যাচ্ছেন।

এদিকে রাজধানীর সায়েদাবাদ, যাত্রাবাড়ী, মহাখালীবাসস্ট্যান্ডে দেখা গেছে, বিভিন্ন জেলা থেকে ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে অনেকে। কমলাপুর রেলস্টেশনেও ঢাকামুখি মানুষের ভিড় বাড়ছে।

সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের দায়িত্বে থাকা এক কর্মকর্তা জানান, এবার ঈদে লোকজন নিরাপদে এবং অত্যন্ত সুন্দরভাবে লঞ্চে করে গ্রামে যেতে পেরেছে। এখন অফিসের ছুটি শেষে সবাই ফিরে আসছে। দক্ষিণাঞ্চল থেকে লঞ্চে হাজার হাজার মানুষ ঢাকায় ফিরছে।

মাদারীপুর প্রতিনিধি জানান, ঈদের ছুটি শেষে কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুট হয়ে কর্মস্থল রাজধানীতে ফিরছেন কর্মজীবী মানুষ। আজ শুক্রবার সকাল থেকে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রতিটি লঞ্চ, স্পিডবোট ও ফেরিতে অতিরিক্ত যাত্রী ও যানবাহনের চাপ দেখা গেছে। যাত্রীরা দীর্ঘ সময় লাইন দাঁড়িয়ে থেকে টিকিট কেটে লঞ্চ ও স্পিডবোটে উঠছেন। প্রতিবারের মতো এবারও যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। তবে বিআইডব্লিউটিএ ও লঞ্চ মালিক সমিতির দাবি, সঠিক নিয়মেই কর্মস্থলমুখী যাত্রীদের পদ্মা নদী পার করা হচ্ছে।

Comments

Check Also

পিরোজপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় বাসের চাপায় অটোরিকশার চালকসহ দুই যাত্রী নিহত হয়েছেন। রবিবার ভোর ৫টার দিকে ঝাউতলা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *