রবিবার , ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮

ছাত্রদল নেতা আগুন দেয় পুলিশের গাড়িতে

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বুধবার দুপুরে পুলিশের সঙ্গে দলটির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় তিনটি মামলা করেছে পুলিশ। এতে ৪৮৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। আর এসব মামলায় মির্জা আব্বাসসহ ৬ নেতাকে হুকুমের আসামি করা হয়েছে। তিন মামলায় পুলিশ ৬৬ জনকে গ্রেপ্তার করে। এদের মধ্যে গতকাল রাতে মহানগর পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে নিপু চৌধুরীকে। সঙ্গীতশিল্পী ও বিএনপি নেত্রী বেবী নাজনীনকে আটক করা হলেও পরে ছেড়ে দেওয়া হয়।

গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ৩৮ জনকে ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। গতকাল সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আনসারী এই আদেশ দেন। আদালত তিন মামলায় ২৭ জনের রিমান্ডের আবেদন নামঞ্জুর করে জেল গেটে তাদের ৩ দিন জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন। এদিন গতকাল সন্ধ্যায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তারা গ্রেপ্তারকৃত ৬৫ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডের আবেদন করে আসামিদের আদালতে হাজির করেন। পল্টন থানায় দায়েরকৃত তিনটি মামলার তদন্ত ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এ দিকে হামলার উদ্দেশ সম্পর্কে ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া ইত্তেফাককে বলেন, আমরা মনে করি হামলা ছিল পূর্ব পরিকল্পিত। পরিস্থিতি অস্থিতিশীল ও ভীতিকর অবস্থা তৈরি করে নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়া এবং নির্বাচনকে নস্যাত্ করাই ছিল হামলাকারীদের উদ্দেশ। তবে তদন্তের পরই বিস্তারিত জানা যাবে বলে তিনি জানান।

গাড়িতে আগুন দেওয়া যুবককে শনাক্ত

সংঘর্ষের সময় পুলিশের গাড়িতে আগুন দেওয়া যুবককে শনাক্ত করা গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। পুলিশ জানায়, দিয়াশলাই দিয়ে আগুন দেওয়া ওই যুবক পল্টন থানা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শাহজালাল খন্দকার। গতকাল বৃহস্পতিবার ইত্তেফাককে এ তথ্য জানান, ঢাকা মহানগর পুলিশের মতিঝিল জোনের উপ কমিশনার (ডিসি) আনোয়ার হোসেন।

তিনি জানান, ছবিতে স্পষ্ট দেখা যায় একজন দিয়াশলাই দিয়ে পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করছিল এবং এ সময় গাড়ির উপরে উঠে আরেকজন লাফাচ্ছিল। তারা দুজনই ছাত্রদলের সদস্য। দিয়াশলাই দিয়ে আগুন দেওয়া ওই যুবক পল্টন থানা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শাহজালাল খন্দকার। তবে তাদেরকে এখনো গ্রেপ্তার করা যায়নি। তাদেরকে গ্রেপ্তারে পুলিশ কাজ করছে বলেও জানান তিনি।

একই তথ্য জানিয়েছেন, ঢাকা মহানগর পুলিশের মতিঝিল বিভাগের সহকারী কমিশনার মিশু বিশ্বাস। তিনি বলেন, গাড়িতে আগুন দেওয়া সেই যুবক ছাত্রদলের নেতা। তার নাম শাহজালাল। সে পল্টন থানা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য। এই ঘটনার সঙ্গে বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরাই জড়িত।

তিনি আরো জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় ভিডিও ফুটেজ দেখে গতকাল পর্যন্ত ৩০ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৬৫ জনকে। তবে এদের মধ্যে গাড়িতে আগুন দেওয়া ও গাড়ির ওপর লাফাতে থাকা যুবক নেই বলে নিশ্চিত করেন তিনি।

পুলিশের উপর আক্রমণ ও গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় ৩ মামলা

বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশ সদস্যদের ওপর হামলার ঘটনায় দায়ের করা তিন মামলায় আসামি করা হয়েছে ৪৮৮ জনকে। এর মধ্যে ৬৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মাসুদুর রহমান জানান, পুলিশ সদস্যদের উপর অতর্কিত হামলা, পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ইত্যাদি ঘটনায় বুধবার রাতে পল্টন মডেল থানায় তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া জানিয়েছেন, নয়াপল্টনে পুলিশের উপর বিএনপি কর্মীদের হামলায় তাদের বাহিনীর ৫জন কর্মকর্তাসহ ২৩ জন আহত হয়েছেন। তারা সবাই বর্তমানে চিকত্সাধীন রয়েছেন। তাদেরকে লাঠি, বাঁশ ও ইট পাটকেল ছুঁড়ে আহত করা হয়েছে। এই ঘটনার তদন্তের দায়িত্ব মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ ও মতিঝিলের অপরাধ বিভাগকে দেয়া হয়েছে বলেও জানান ডিএমপি কমিশনার।

মির্জা আব্বাসসহ ৬ নেতা হুকুমের আসামি

তিন মামলায় মির্জা আব্বাসসহ ছয় নেতাকে হুকুমের আসামি করা হয়েছে। আসামিরা হলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যাত্রাবাড়ি বিএনপির সভাপতি নবীউল্লাহ নবী, ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) আকতারুজ্জামান এবং চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কফিল উদ্দিন। এছাড়া মামলায় অন্য আসামিরা হলেন বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবিব, মিডিয়া উইং সামসুদ্দিন দিদার, দফতর সম্পাদক বেলাল আহমেদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট নিপুন রায়, যুবদলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম মজনু, ছাত্রদল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি জহির উদ্দিন তুহিন, কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক আরিফা সুলতানা রুমাসিসহ আরও অনেকে।

নিপুন রায় চৌধুরী গ্রেপ্তার

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও অ্যাডভোকেট নিপুন রায় চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর নাইটেঙ্গেল মোড় থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ পূর্ব বিভাগের উপ-কমিশনার খন্দকার নুরুন্নবী তার গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। পল্টন থানায় দায়ের করা একটি মামলার এজাহারভুক্ত ১২ নম্বর আসামি নিপুন রায় চৌধুরী। তিনি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পুত্রবধূ ও বিএনপির সাবেক প্রতিমন্ত্রী নিতাই রায় চৌধুরীর মেয়ে।

বেবী নাজনীন আটকের পর মুক্তি

জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী ও বিএনপির সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক বেবী নাজনীনকে আটক করা হলেও পুলিশ তাকে ছেড়ে দিয়েছে।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন বলেন, নিপুন রায় চৌধুরী এবং বেবী নাজনীন একই গাড়িতে ছিল। তাদেরকে রাজধানীর বিজয়নগর মোড় থেকে মহানগর গোয়েন্দা দফতরে আনা হয়েছিল। বেবী নাজনীন মামলার আসামি নন। তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

ভিডিও দেখে গ্রেপ্তারকৃতদের শনাক্ত

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন বলেন, গ্রেপ্তারকৃতদেরকে ভিডিও ফুটেজ দেখানোর পরই তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, হেলমেটধারীদেরকে শনাক্ত করা গেছে।

নিরাপদ দূরত্বে পুলিশ

গতকাল বিএনপির মনোনয়ন ফরম বিতরণের চতুর্থ দিনও ঢাক-ঢোল পিটিয়ে মিছিলসহ মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করতে দলের কার্যালয়ে আসেন ধানের শীষের প্রার্থীরা। তবে বুধবারের পুলিশ-বিএনপির সংঘর্ষের ঘটনায় সকালের দিকে কিছুটা অস্বস্তি ও ভীতি বিরাজ করছিল দলটির নেতাকর্মীদের মাঝে। তবে গতকাল পুলিশ ছিল কিছুটা নিরাপদ দূরত্বে।

ইত্তেফাক/আরকেজি

Comments

Check Also

৭-৯ ডিসেম্বর পশ্চিমবঙ্গে আন্তর্জাতিক কবিতা উৎসব

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ৭ ডিসেম্বর (শুক্রবার) থেকে শুরু হয়েছে আন্তর্জাতিক কবিতা উৎসব। এ উৎসব চলবে আগামী …