Saturday , 24 October 2020

প্রায় সাত মাস পর এক মঞ্চে আবার সবাই একসঙ্গে

যেন একঝাঁক পায়রার মিলনমেলা শেরেবাংলার সবুজ গালিচায়। দূর থেকে দেখে মনে হচ্ছিল, মুক্ত জীবনের স্বাদ উপভোগ করছে ডানা মেলে। বায়ো-বাবলের কঠিন নিয়মের ভেতরেও প্রত্যেকের চোখেমুখে লেগে ছিল একতাবদ্ধ হওয়ার প্রশান্তি। প্রায় সাত মাস পর এক মঞ্চে দলবদ্ধ অনুশীলন করার আনন্দে তাদের হৃদয় কুসুমকলির পাপড়ি খুলেছে। আপন ঘর ছেড়ে আসার কষ্ট ভুলে গেছেন ক্রিকেট মাঠের পরম আপনজনদের কাছে পেয়ে। মুমিনুলের নেতৃত্বে গা গরমের দৌড়ঝাঁপে ১৬ ক্রিকেটারকে যেন উচ্ছল করে তুলছিলেন অদৃশ্য কোনো তবলচি। ‘নিউ নরমাল’ জীবনে নতুন পোশাকে আলোকচিত্রীর ফ্রেমে কী দারুণই না দেখাচ্ছিল মাহমুদুল্লাহদের। ট্র্যাডিশনাল রংয়ের পোশাকের বাইরে গিয়ে হালকা নীলের সঙ্গে কালোর মিশেল জার্সি। সবটাতেই যেন নতুনত্ব।

গতকাল দুপুরে ছিল টাইগারদের প্রথম অনুশীলন। শ্রীলঙ্কা সফর হবে ধরে নিয়েই বাসা থেকে একেবারে লাগেজ গুছিয়ে শেরেবাংলায় এসেছিলেন তামিমরা। রিপোর্টিংয়ের পর কোচের ব্রিফিং, অতঃপর অনুশীলনে মনোনিবেশ। ভাগে ভাগে ব্যাটে-বলের স্কিল ট্রেনিং হয়েছে পুরোদস্তুর। রানিং, ফিল্ডিং, কিপিং, নেট সেশন প্রতিটি ড্রিলই ছিল চোখে পড়ার মতো; করোনা মহামারির কারণে গত সাত মাস যেটা অনুপস্থিত ছিল মিরপুরে।

তবে এই নতুন শুরুতেও ক্যাম্পের ২৭ ক্রিকেটার একসঙ্গে হতে পারেননি। দু’জন ক্রিকেটারের বর্ডার লাইন কভিড নেগেটিভের জন্য আইসোলেশন করতে হচ্ছে মো. মিঠুন, শফিউল ইসলাম, নাঈম হাসান, আবু জায়েদ রাহি, ইবাদত হোসেন, খালেদ আহমেদ, নাজমুল হোসেন শান্ত, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, হাসান মাহমুদ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, সাইফ হাসানসহ ১১ জনকে। সাইফউদ্দিন করোনা নেগেটিভ হয়ে বাসায় আছেন। রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও হালকা জ্বর থাকায় একাডেমি ভবন থেকে বাসায় ফিরে গেছেন পেসার শফিউল ইসলাম। কভিড টেস্টে নেগেটিভ হওয়া সত্ত্বেও একাডেমি ভবনে থাকার কারণে মিঠুনদের রাখা হয়েছে আলাদা।

বায়ো-বাবলের নিয়মই হলো তাই। দলের ভেতরে কারও কভিড উপসর্গ দেখা দিলে তার সংস্পর্শে আসা সবাইকে আইসোলেশনে পাঠাতে হবে। বিসিবির মেডিকেল বিভাগ সেটাই কার্যকর করেছে গতকাল। আগামীকাল আবার কভিড পরীক্ষা দিয়ে নেগেটিভ হলে হোটেলে ওঠার সুযোগ পাবেন তারা।

প্রথম দলগত অনুশীলন সেরে সন্ধ্যায় হোটেল সোনারগাঁওয়ে উঠেছেন ১৬ ক্রিকেটার ও সাপোর্ট স্টাফরা। সেখানেও বায়ো-বাবলের ভেতরে চলতে হচ্ছে সবাইকে। যে ক্রিকেটাররা খেলার কারণে হোটেলবাস করে ক্লান্ত হয়ে যেতেন, তারাই এবার খুশিমনে হোটেলে উঠেছেন। রুমে লাগেজ রেখে সুইমিং করেছেন অনেকে। জিম্বাবুয়ে সিরিজের পর আবার হোটেলবাস ও সুইমিং করতে পারছেন তারা।

এই উৎসবের ভেতরেও একটা অজানা শঙ্কা লুকিয়ে রয়েছে ক্রিকেটারদের মনে, শ্রীলঙ্কা সিরিজ হবে কিনা। ফোনে এক-দু’জন জানতেও চান সে কথা। শনিবার পর্যন্ত খবর, টাইগারদের লঙ্কা সফর এখনও ট্র্যাকেই আছে। শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি) ও তাদের ক্রীড়া মন্ত্রণালয় বায়োসিকিউর বাবলে টাইগারদের জন্য অনুশীলনের ব্যবস্থা রাখতে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের বুঝিয়ে রাজি করতে শেষ চেষ্টা করে যাচ্ছে। এসএলসির আশ্বাসে বিসিবিও সফর হচ্ছে ধরে নিয়েই বায়ো-বাবলে আবাসিক ক্যাম্প শুরু করেছে গতকাল।

Comments

Check Also

আইসিসির আম্পায়ার কথা বলতে উঠলো গাছের ডালে

প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের কারণে থমকে গেছে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গন। এ জগতের সব তারকারাই ঘরে বসে কেউ …