Friday , 10 April 2020

যশোরে ১৩ জন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করলেন

যশোরের ৬টি সংসদীয় আসনে ৫৩ জন বৈধ প্রার্থীর মধ্যে ১৩ জন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। ফলে চূড়ান্ত তালিকায় ৪০ জন প্রার্থী মাঠে থাকলেন। তবে তিনটি আসনে বিএনপির একাধিক প্রার্থী মাঠে রয়েছেন। এইসব আসনে দলীয় চূড়ান্ত মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থীই পাবেন দলীয় প্রতীক। বাকিদের প্রার্থিতা বাতিল হয়ে যাবে।

যশোর জেলা রিটার্নিং অফিসার মো. আব্দুল আওয়াল জানান, দলীয় মনোনয়ন নিয়ে একাধিক প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারেন। তারা অনেকে বৈধও হয়েছেন। নিয়মানুযায়ী প্রত্যেক দলের একজন প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে। দলের বাকি প্রার্থী স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাতিল হয়ে যাবে।

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে যশোরের ৬টি সংসদীয় আসন থেকে যে ১৩ জন প্রত্যাহার করেছেন, তার মধ্যে যশোর-১ থেকে একমাত্র বিএনপির হাসান জহির প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। যশোর-২ থেকে ৩ জন আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য মো. মনিরুল ইসলাম, বিএনপি প্রার্থী মোহাম্মদ ইসহক ও ন্যাপ (মোজাফফর) প্রার্থী অ্যাডভোকেট এটিএম এনামুল হক মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন। যশোর-৩ থেকে ২ জন বিএনপি প্রার্থী অ্যাডভোকেট সৈয়দ এএইচ সাবেরুল হক সাবু ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ প্রার্থী রবিউল আলম প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। যশোর-৪ থেকে ৪ জন প্রার্থিতা করেছেন।

তারা হলেন- বিএনপি প্রার্থী মতিয়ার রহমান ফারাজী ও একই দলের তানিয়া রহমান, জেএসডি প্রার্থী মো. আবদুস সালাম ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি প্রার্থী মো. ইকবাল কবির। যশোর-৫ থেকে একমাত্র স্বতন্ত্র (জামায়াত) প্রার্থী মো. এনামুল হক প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। যশোর-৬ থেকে প্রত্যাহার করেছেন ২ জন। তারা হলেন বিএনপি প্রার্থী আবদুস সামাদ বিশ্বাস ও স্বতন্ত্র (জামায়াত) প্রার্থী মোক্তার আলী।

প্রত্যাহারের পর যারা চূড়ান্তভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকলেন- যশোর-১ (শার্শা): শেখ আফিল উদ্দিন (আওয়ামী লীগ), মফিকুল হাসান তৃপ্তি (বিএনপি), মো. বখতিয়ার রহমান (ইসলামী আন্দোলন) ও সাজেদুর রহমান ডাবলু (জাকের পার্টি), যশোর-২ (ঝিকরগাছা-চৌগাছা): মেজর জেনারেল (অব.) মো. নাসির উদ্দিন (আওয়ামী লীগ), আবু সাঈদ মোহাম্মদ শাহাদাৎ হুসাইন (বিএনপি, জামায়াত), বিএম সেলিম রেজা (বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি), মো. আলাউদ্দিন (বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল), মো. আসাদুজ্জামান (ইসলামী আন্দোলন), এম আসাদুজ্জামান (গণফোরাম) ও ফিরোজ শাহ (জাতীয় পার্টি), যশোর-৩ (সদর): কাজী নাবিল আহমেদ (আওয়ামী লীগ), অনিন্দ্য ইসলাম অমিত (বিএনপি), মো. জাহাঙ্গীর আলম (জাতীয় পার্টি), মনিরুজ্জামান মনির (জাকের পার্টি) ও সৈয়দ বিপ্লব আজাদ (জেএসডি), যশোর-৪ (বাঘারপাড়া ও অভয়নগর উপজেলা ও বসুন্দিয়া ইউনিয়ন) : রনজিত কুমার রায় (আওয়ামী লীগ), টিএস আইয়ুব (বিএনপি), মো. জহুরুল হক (জাতীয় পার্টি), নাজমুল হুদা (ইসলামী আন্দোলন), লে. ক. (অব.) এম শাব্বির আহমেদ (বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি), সুকৃতি কুমার মণ্ডল (বিএনপি), নাজিম উদ্দিন আল আজাদ (বিকল্পধারা বাংলাদেশ), মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ (বাংলাদেশ পিপলস পার্টি) ও লিটন মোল্লা (জাকের পার্টি), যশোর-৫ (মণিরামপুর): স্বপন ভট্টাচার্য (আওয়ামী লীগ), মুহাম্মদ ওয়াককাস (বিএনপি, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম), এমএ হালিম (জাতীয় পার্টি), ইবাদুল হক খালাসি (ইসলামী আন্দোলন), শহীদ মো. ইকবাল হোসেন (বিএনপি), কামরুল ইসলাম বারী (স্বতন্ত্র, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), নিজাম উদ্দিন অমিত (জাগপা) ও রবিউল ইসলাম (জাকের পার্টি) এবং যশোর-৬ (কেশবপুর) : ইসমাত আরা সাদেক (আওয়ামী লীগ), আবুল হোসেন আজাদ (বিএনপি), অমলেন্দু দাস অপু (বিএনপি), আবু ইউসুফ বিশ্বাস (ইসলামী আন্দোলন), মো. মাহবুব আলম (জাতীয় পার্টি) ও মো. সাইদুজ্জামান (জাকের পার্টি)।

Comments

Check Also

ফতুল্লায় চুলার আগুনে দগ্ধ আরও ২ জনের মৃত্যু

নারায়ণগঞ্জের সদর উপজেলার ফতুল্লায় গ্যাসের চুলার আগুনে দগ্ধ আরও দু’জন শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক …