Saturday , 6 June 2020

রাজশাহীতে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে মাদকের মামলায় চালান দিল পুলিশ

গত বুধবার দিবাগত রাতে রাজশাহী নগরীর ওয়াসা ভবন এলাকায় চার বন্ধু মিলে গল্প করছিলেন প্রকৌশলী রেইন। ঐ সময় ধূমপান করছিলেন তারা। সেখান দিয়ে যাচ্ছিল নগরীর বিসিক পুলিশ ফাঁড়ির একটি টহল দল। মাদক সেবনের কথিত অভিযোগে ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আব্দুল করিম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে তাদের আটক করেন। এরপর গাড়িতে তুলে চার জনকে তুলে আনেন ফাঁড়িতে।

অভিযোগ রয়েছে, প্রকৌশলী রেইনকে মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে নগরীর উপশহর এলাকার ডাচবাংলা ব্যাংকের বুথে যান এসআই। সেখান থেকে ২৫ হাজার টাকা তুলে নিয়ে রেইনকে তার বাড়ি নগরীর লক্ষ্মীপুর ডিঙ্গাডোবা এলাকায় দিয়ে আসেন। কিন্তু ছাড়া পাননি রেইনের বন্ধু সাইদ, বকুল, নাঈম ও জয়নাল। তাদের মধ্যে শারীরিক প্রতিবন্ধী সাইদ পুলিশের এসআইকে ৫ হাজার টাকা দেওয়ায় তাকে আরএমপি ধারায় চালান দেওয়া হয়েছে। বাকি তিন জনকে ৩০ পিস ইয়াবা উদ্ধার দেখিয়ে মাদকের মামলায় বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

জানা যায়, গ্রেফতার জয়নাল নগরীর কয়েরদাঁড়া এলাকার বাসিন্দা। নগরীর লক্ষ্মীপুর ডিঙ্গাডোবার বাসিন্দা রেইন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে সফটওয়ার প্রকৌশলী। এছাড়া সাইদ, বকুল ও নাঈম নগরীর ওয়াসাসংলগ্ন ফিরোজাবাদ এলাকার বাসিন্দা। তাদের সবার বয়স ৩০ বছরের মধ্যে। ভুক্তভোগীদের স্বজনরা জানান, তুলে নিয়ে যাওয়ার পর তাদের মাধ্যমে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এসআই আব্দুল করিম। তাদের ছাড়িয়ে নিতে রাতভর তদ্বিরও চলে। কিন্তু এসআই করিম টাকা না পাওয়ায় ছাড়তে রাজি হননি।

অন্যদিকে ঐ রাতেই শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ও নগরীর কয়েরদাঁড়া এলাকার খোদাবক্সের ছেলে মো. নাসিমকে মাদকসহ গ্রেফতার করে এসআই আব্দুল করিম। কিন্তু তাকে চালান দিয়েছেন আরএমপি ধারায়। তার কাছ থেকেও ৫০ হাজার টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এসআই আব্দুল করিমের বিরুদ্ধে। তবে ভুক্তভোগীদের স্বজনদের উত্থাপিত অভিযোগ অস্বীকার করে এসআই আব্দুল করিম বলেন, মাদক সেবনরত অবস্থায় যে চার জনকে আটক করা হয়েছিল, তাদের কাছ থেকে সবমিলিয়ে ৩০ পিস ইয়াবা পাওয়া গেছে। পরে মাদক মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাদের আদালতে চালান দেওয়া হয়। এছাড়া আটকের পর টাকা নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীকে এবং বুথ থেকে টাকা তুলে প্রকৌশলীকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগও অস্বীকার করেন এসআই আব্দুল করিম। মহানগর পুলিশের মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস জানান, এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে তদন্ত করে অবশ্যই দোষি পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments

Check Also

মসজিদে দানের টাকা নিয়ে মারপিটে নিহত ১

নওগাঁর মান্দায় মসজিদে দানের টাকা ঘোষণা দেয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলা ও মারপিটে তোফাজ্জল হোসেন …