Saturday , 11 July 2020

সাতক্ষীরায় পেঁয়াজ চোরের অত্যাচারে দিশেহারা কৃষক

সাতক্ষীরার বিভিন্ন গ্রামে ফসলের মাঠ থেকেই চুরি হয়ে যাচ্ছে পেঁয়াজ। পুলিশও পেঁয়াজ চুরি ঠেকাতে হিমশিম খাচ্ছে। নিরুপায় হয়ে সামাজিক প্রতিরোধের ওপর জোর দিতে বলছেন তারা।

সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার দিগং গ্রামের ফসলের মাঠে রাত জেগে টর্চ নিয়ে পাহারা দিতে দেখা যায় এলাকার লোকজনকে।

রাতে পাহারারত আশরাফুলের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তাদের এলাকাজুড়ে বর্তমানে পেঁয়াজ চুরির হিড়িক পড়েছে। ফসলের পুরো মাঠ তাদের পক্ষে পাহারা দেয়া সম্ভব না। তাই তারা প্রতিদিন মাঠের একেক পাশে পাহারা দিচ্ছেন। কিন্তু যেদিন যে এলাকায় পাহারা সেদিন অন্য এলাকায় চুরি করছে। কিছুতেই পেঁয়াজ চোরদের ঠেকানো যাচ্ছে না।

জেলার কলারোয়া উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়ন পরিষদের দফাদার এজাহার আলী বলেন, গ্রাম্য দফাদারদের সাধারণ মানুষ সমীহ করে চলে। সেই দফাদার হয়েও রেহাই পাননি তিনি। তার ক্ষেতের সব পেঁয়াজ চুরি হয়ে গেছে। এখন যেভাবে পাহারা দিতে হচ্ছে ফসলের মাঠে এরকম পাহারা এর আগে কখনই দিতে হয়নি তাদের। চুরির ভয়ে কৃষকরা অপরিপক্ক অবস্থায় পেঁয়াজ তুলে ফেলতে বাধ্য হচ্ছেন।

উপজেলার পেঁয়াজ চাষী আবুল হোসেন ভুট্টো জানান, এবার পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ার পর বীজের দামও বেড়েছে। ফলে কৃষক প্রথমেই পড়েছে এক বড় সঙ্কটে। তারপর আবার এই চুরি যাওয়াতে তাদের মাথায় হাত উঠেছে।

এভাবে কলারোয়া উপজেলার পেঁয়াজ চাষী ছবুর দাই, নওশের আলী দাই, নজরুল দাই, শাহালম গাজী সাইদুল ইসলাম, সাত্তার গাজীসহ অনেকে তাদের ক্ষেত থেকে পেঁয়াজ চুরি হয়ে যাওয়ার কথা জানান।

সাতক্ষীরার পুলিশের বিশেষ শাখার সহকারী পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম বলেন, ক্ষেত থেকে পেঁয়াজ চুরি ঠেকাতে সম্মিলিত প্রতিরোধের উদ্যোগ নেয়া হবে। কেউ অভিযোগ দিলে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নেয়া হবে।

Comments

Check Also

বিষাক্ত গ্যাসে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ৭ গ্রামের মানুষ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার মুড়াপাড়া ইউনিয়নের মঙ্গলখালী এলাকায় ওয়াটা কেমিক্যাল কারখানার বিষাক্ত গ্যাসে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছেন …